বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১
বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১
Ajker Dainik

লটারিতে রাজউকে ১১ পদে ১২১ কর্মচারীকে  বদলি

আজকের দৈনিক | নিজস্ব প্রতিবেদক:

প্রকাশিত: মার্চ ২১, ২০২৪, ০৬:৫৬ পিএম

লটারিতে রাজউকে ১১ পদে ১২১ কর্মচারীকে  বদলি
ছবি সংগৃহিত

রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) চেয়ারম্যানের নির্দেশে কর্মচারীদের বদলিতে অতিমাত্রায় তদবির প্রতিরোধে নতুন কৌশল গ্রহণ করা হয়েছে। একই সাথে  কর্মচারীদের বদলি সংক্রান্ত কার্যক্রম অধিকতর স্বচ্ছতা বজায় রাখার স্বার্থে লটারি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ১১টি পদের ১২১ জন কর্মচারীকে বদলি করা হয়েছে। কারণ লটারির মাধ্যমে বদলি করা হলে, এই বিষয়টির স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা যায়। একই নগরবাসী আরও বেশি সেবা পাবেন বলে প্রত্যাশা রাজউক কর্মকর্তাদের।

বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) সকালে রাজউক ভবনের সভাকক্ষে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ১১টি পদের ১২১ জন কর্মচারীকে বদলি করা হয়। উল্লেখ্য, এই পদগুলো হলো কানুনগো (গ্রেড-১০), ইমারত পরিদর্শক (গ্রেড-১০), হিসাবরক্ষক (গ্রেড-১১), নথিরক্ষণ কর্মকর্তা (গ্রেড-১২), নক্সাকার (গ্রেড-১২), উচ্চমান সহকারী (গ্রেড-১৪), সুপারভাইজার (গ্রেড-১৬), ডাটা এন্ট্রি অপারেটর (গ্রেড-১৬), কনিষ্ঠ হিসাব সহকারী (গ্রেড-১৬), অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার অপারেটর (গ্রেড-১৬) এবং নথিরক্ষক (গ্রেড-১৭)।

 রাজউকের সহকারী পরিচালক তৌহিদুল ইসলাম  গণমাধ্যমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, লটারি অনুষ্ঠানে রাজউক চেয়ারম্যান (সচিব) আনিছুর রহমান মিঞা, বিপিএএ, গণমাধ্যমকে জানান, “পদায়ন, বদলি ও অন্যান্য দাপ্তরিক কার্যক্রমের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। এর অংশ হিসেবে লটারির মাধ্যমে বদলির এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। উল্লেখ্য,  বছর  ০৭ আগস্ট রাজউকে বিভিন্ন পদে নবযোগদানকৃত ১৩০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং চলতি বছর ০৭ ফেব্রুয়ারি সার্ভেয়ার পদে নবযোগদানকৃত ৩২জন কর্মচারীকে একই প্রক্রিয়ায় লটারির মাধ্যমে বিভিন্ন দপ্তরে পদায়ন করা হয়।“

লটারি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বদলিকৃত কর্মচারীরা কোথাও কোনো তদবির না করেই স্বচ্ছতার সঙ্গে কর্মস্থলে যোগদান করবেন, উল্লেখ করে রাজউক চেয়ারম্যান আরও বলেন, “দাপ্তরিক কার্যক্রমে স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণের উপর আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করছি যাতে করে রাজউক-এর কর্মচারীরা নিরপেক্ষভাবে সেবামুখী মনোভাব নিয়ে কাজ করে নাগরিক সেবার মান বৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারেন। ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত, সমৃদ্ধ, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে উন্নত নাগরিক সেবার কোনো বিকল্প নেই।”

অনুষ্ঠানে  রাজউক চেয়ারম্যান  মোঃ আনিছুর রহমান মিঞা উপস্থিত ছিলেন । এছাড়াও  সদস্য (প্রশাসন ও অর্থ) মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, সদস্য (এস্টেট ও ভূমি) মোহাম্মদ নূরুল ইসলাম, সদস্য (উন্নয়ন) মেজর ইঞ্জিনিয়ার সামসুদ্দীন আহমদ চৌধুরী (অবঃ),  সদস্য (উন্নয়ন নিয়ন্ত্রণ) মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ. এন ডি সি আরও উপস্থিত ছিলেন রাজউক, ঢাকা-সহ  রাজউকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।
আ. দৈনিক / একে
 

Link copied!