সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
Ajker Dainik

সাবেক সেনা প্রধান আজিজের দুই ভাইয়ের ভুয়া এনআইডি তদন্তে  ইসির কমিটি গঠন

আজকের দৈনিক | নিজস্ব  প্রতিবেদন 

প্রকাশিত: জুন ১০, ২০২৪, ০৬:১৩ পিএম

সাবেক সেনা প্রধান আজিজের দুই ভাইয়ের ভুয়া এনআইডি তদন্তে  ইসির কমিটি গঠন

মিথ্যা তথ্য দিয়ে সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের দুই ভাইয়ের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) নেওয়ার ঘটনা রোববার (০৯ জুন) ৩  সদস্যের  একটি তদন্ত কমিটি গঠন করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এ জন্য রোববার তিন সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, কমিটিতে একজন যুগ্ম সচিবকে প্রধান করা হয়েছে। গণমাধ্যমে এ বিষয়ে সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর দুর্নীতি দমন থেকে চিঠি দেওয়া হয় ইসিকে। পরিপ্রেক্ষিতের এই তদন্ত কমিটি করা হয়। গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করে ইসি সচিবালয়ের সচিব শফিউল আজিম বলেন, তারা দুদক থেকেও একটি চিঠি পেয়েছেন। অভিযোগ যাচাইয়ের জন্য একটি কমিটি করা হয়েছে।

নাম পাল্টে এনআইডি সংগ্রহ করেন আজিজ আহমেদের দুই ভাই হারিছ আহমেদ ও তোফায়েল আহমেদ ওরফে জোসেফ। তোফায়েল নিয়েছেন দুটি এনআইডি। একটি তানভীর আহমেদ তানজীল নামে, আরেকটি আসল নামে। হারিছ আহমেদ এনআইডি নেন মোহাম্মদ হাসান নামে। তারা নিজেদের পাশাপাশি বাবা-মায়ের নামও পাল্টে ফেলেছেন।

মোহাম্মদ হাসান নামে করা এনআইডিতে হারিছ নিজের ছবি পরিবর্তন করেন ২০১৯ সালে। ছবি বদলানোর জন্য সুপারিশ করেছিলেন তৎকালীন সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদ। আইন অনুযায়ী, মিথ্যা তথ্য দিয়ে এনআইডি করা এবং একাধিক এনআইডি করা-দুটিই শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

মিথ্যা তথ্য দিয়ে পাসপোর্টও তৈরি করেছেন আলোচিত দুই ভাই। তাদের স্ত্রীরাও একই কাজ করেছেন। সেনাপ্রধান থাকার সময়েই আজিজ আহমেদের ভাইদের ভুয়া তথ্যে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট করানোর ক্ষেত্রে তার প্রভাব খাটানোর বিষয়ে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। তোফায়েলের দুটি এনআইডি নেওয়া এবং হারিছের ছবি পরিবর্তনে আজিজ আহমেদের সুপারিশ করা নিয়ে গত ২৮ মে সংবাদ প্রকাশ করে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যম। এর আগে আলজাজিরার একটি ভিডিও প্রতিবেদনে বিষয়টি সামনে আসে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করে নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে দুর্নীতি দমন কমিশন থেকেও এ বিষয়ে ইসিকে চিঠি দেওয়া হয়। পরে গতকাল ইসির একজন যুগ্ম সচিবকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

দেশের একাধিক থানা ও আদালতের নথিপত্র, সাজা মওকুফ চেয়ে (জোসেফের জন্য) মায়ের করা আবেদনসহ সাজা মওকুফের সরকারি প্রজ্ঞাপনে হারিছ ও জোসেফের বাবার নাম আব্দুল ওয়াদুদ ও মায়ের নাম রেনুজা বেগম লেখা আছে। কিন্তু হারিছ যে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট নিয়েছেন, তাতে বাবার নাম সুলেমান সরকার এবং মায়ের নাম রাহেলা বেগম উল্লেখ রয়েছে।

কিন্তু তানজীল নামে নেওয়া জোসেফের জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্টে বাবার নাম সোলায়মান সরকার এবং মায়ের নাম ফাতেমা বেগম লেখা আছে। তবে তোফায়েলের আসল নামে নেওয়া এনআইডিতে বাবার নাম আব্দুল ওয়াদুদ, মায়ের নাম রেনুজা বেগম উল্লেখ করা হয়েছে। তিনি শিক্ষাগত যোগ্যতা দেখিয়েছেন অষ্টম শ্রেণি। পেশা দেখিয়েছেন ব্যবসা।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৬ সালে মোহাম্মদপুরের ব্যবসায়ী মোস্তাফিজুর রহমান হত্যা মামলার আসামি ছিলেন জোসেফ। এ মামলায় তাকে মৃত্যুদণ্ড দেন আদালত। এই রায় বহাল রাখেন হাইকোর্ট। পরে আপিল বিভাগ সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। ২০১৮ সালে যাবজ্জীবন দণ্ডিত শীর্ষ সন্ত্রাসী জোসেফ রাষ্ট্রপতির ক্ষমায় মুক্তি পান।

আজিজ আহমেদ ২০১৮ সালের ২৫ জুন থেকে ২০২১ সালের ২৩ জুন পর্যন্ত সেনাপ্রধানের দায়িত্বে ছিলেন। দুর্নীতিতে সম্পৃক্ততার অভিযোগে সম্প্রতি এই সাবেক সেনাপ্রধানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। 

সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদের বিরুদ্ধে করা দুর্নীতির অভিযোগ শিডিউলভুক্ত হলে অনুসন্ধানের জন্য আমলে নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ। তিনি বলেন, অভিযোগ আমলযোগ্য হলে সেটা এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই। 

আ.দৈনিক / একে

Link copied!