সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
Ajker Dainik

বাজেটে মেট্রোরেলের উপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবী আইপিডি’র

আজকের দৈনিক | নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: জুন ১১, ২০২৪, ০৫:১১ পিএম

বাজেটে মেট্রোরেলের উপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবী আইপিডি’র
ফাইল ছবি-

আসন্ন জুলাই থেকে মেট্রোরেলে ভ্যাট আরোপের  পূর্বঘোষিত  সিদ্ধান্ত বাতিলের ব্যাপারে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে কোন দিকনির্দেশনা না থাকায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে  ইনস্টিটিউট ফর প্ল্যানিং এন্ড ডেভেলপমেন্ট (আইপিডি)। একইসাথে ঢাকার গণপরিবহন হিসেবে মেট্রোরেলের ব্যবহার তুলনামূলক ব্যয়সাশ্রয়ী ও সার্বজনীন করতে চূড়ান্ত বাজেটে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) কর্তৃক আরোপিত ১৫ শতাংশ ভ্যাট (মূল্য সংযোজন কর) প্রত্যাহারের দাবী জানাচ্ছে আইপিডি। 

মঙ্গলবার (১১ জুন) আইপিড‘র  নির্বাহী পরিচালক ড. মোহাম্মদ আরিফুল ইসলাম ও পরিচালক অধ্যাপক ড. আদিল মুহাম্মদ খান এক যুক্ত বিবৃতিতে বাজেটে মেট্রোরেলের উপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার দাবী জানিয়েচেন।

বিবৃতিতে উল্লেখ করেছেন, ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে মেট্রোরেলের টিকিটে ভ্যাট মওকুফের বিষয়ে কিছু উল্লেখ করা হয়নি, যা অত্যন্ত সংকটজনক বিষয় বলে মনে করে আইপিডি। মেট্রোরেলের টিকিটের ওপর বর্তমানে ভ্যাট (মূল্য সংযোজন কর) মওকুফ আছে, যার সময়সীমা ৩০ জুন পর্যন্ত। প্রস্তাবিত বাজেটে মেট্রোরেলের ভ্যাট মওকুফের সময়সীমা বাড়ানোর বিষয়ে কিছু না বলার অর্থ হচ্ছে আগামী ১ জুলাই থেকে মেট্রোরেলের টিকিটে ১৫ শতাংশ ভ্যাট বসছে, ফলে বাড়বে মেট্রোরেলের ভাড়া। 

ফলশ্রুতিতে মেট্রোরেল ব্যবহারকারী ঢাকার স্বল্পবিত্ত ও মধ্যবিত্তের অনেকেরই জন্য মেট্রোরেলের নিয়মিত ব্যবহার সাধ্যের বাইরে চলে যেতে পারে। মেট্রোরেল এ ভ্যাট আরোপের সিদ্ধান্তের বিপক্ষে যোগাযোগমন্ত্রীর সুস্পষ্ট অবস্থানের পরও বাজেটে এই বিষয়ে যথাযথ ঘোষণা না আশায় সাধারণ জনগণের পক্ষ থেকে হতাশা ব্যক্ত করছে আইপিডি। 

 আইপিড‘র বিবৃতিতে বলা হয়, ঢাকা শহরে  মেট্রোরেল এর বিদ্যমান ভাড়া এশিয়ার অন্য অনেক দেশের তুলনায় এমনিতেই বেশি আছে। ভারতের কলকাতা, পাকিস্তানের লাহোর, ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তা, মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর প্রভৃতি মেট্রোরেলে চলাচলের ব্যয় বাংলাদেশের মেট্রোরেল এর বর্তমান ভাড়ার তুলনায় অনেক কম। ঢাকায় মানসম্মত গণপরিবহন এর তীব্র সংকট এবং মাত্রাতিরিক্ত যানজট এর কারণে অনেক সাধারণ মানুষ দৈনন্দিন অন্যান্য ব্যয় হতে কাটছাঁট করেই সাধ্যের অতিরিক্ত ভাড়া দিয়েই মেট্রোরেলে নিয়মিত যাতায়াত করছেন।

 উত্তরা-মতিঝিল এর মধ্যবর্তী রুটের অনেক স্বল্প আয়ের লোকেরা বিদ্যমান ভাড়াতেই মেট্রোরেল চড়বার সামর্থ্য না থাকায় একান্ত বাধ্য হয়েই এই রুটের মানহীন বাসে চলাচল করছেন। 

বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, মেট্রোরেলের যাত্রী পরিবহন সক্ষমতা দৈনিক ৫ লক্ষ হলেও এখন ঢাকায় প্রায় ৩ লাখ যাত্রী এটি ব্যবহার করছে। ফলে এখনও সক্ষমতার পুরো মাত্রায় মেট্রোরেলের ব্যবহার করতে পারছি না আমরা। এমতাবস্থায় মেট্রোরেলে ১৫ শতাংশ ভ্যাট যুক্ত হলে বর্ধিত ভাড়ার কারণে এটির ব্যবহারকারী কমে যেতে পারে। রাজধানী ঢাকার মত মেগা সিটিতে যাতায়াত ও পরিবহনে মানসম্মত গণপরিবহন ব্যবস্থার সুযোগ মানুষের অন্যতম মৌলিক অধিকার।

এসডিজির ধারণায় অন্যতম হচ্ছে টেকসই ও অন্তর্ভুক্তিমূলক নগর যেখানে পরিসেবা ও নাগরিক সুবিধাদি সকল আয়ের মানুষের সাধ্যের মধ্যে রাখাই রাষ্ট্রের অন্যতম লক্ষ্য। মেট্রোরেলে ভ্যাটের মত পরোক্ষ কর বসিয়ে রাজস্ব আদায় না করে বাজেটে অতি ধনীদের আয়কর এর মত প্রত্যক্ষ কর বাড়ানো ও খেলাপি ঋণ কমানোতে নজর দেয়া উচিত বলে মনে করে আইপিডি। ফলে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের চূড়ান্ত বাজেটে মেট্রোরেলের জন্য এনবিআর প্রস্তাবিত ভ্যাট আরোপের সিদ্ধান্ত বাতিলের সুস্পষ্ট ঘোষণার দাবী জানাচ্ছে আইপিডি। 


আ. দৈনিক / একে

Link copied!